জিহাদে, suicide bombing, কি জায়েজ?

Spread the love

জিহাদে, suicide bombing, কি জায়েজ?

উত্তর :

যাবতীয় প্রশংসা আল্লাহর। দরুদ ও সালাম আল্লাহর রাসূল (সা) এর উপর। পরম করুণাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি।

আত্মহত্যা অবশ্যই হারাম । তবে যুদ্ধের ময়দানে যখন বিশাল শত্রুর সম্মুখীন । তখন একজনের আত্মত্যাগ বাচাতে পারে পুরো দলকে ।

• আর মানুষের মাঝে এক শ্রেণীর লোক রয়েছে যারা আল্লাহর সন্তুষ্টিকল্পে নিজেদের জানের বাজি রাখে। আল্লাহ হলেন তাঁর বান্দাদের প্রতি অত্যন্ত মেহেরবান। (সূরা বাকারা: 207)

• আল্লাহ ক্রয় করে নিয়েছেন মুসলমানদের থেকে তাদের জান ও মাল এই মূল্যে যে, তাদের জন্য রয়েছে জান্নাত। তারা যুদ্ধ করে আল্লাহর রাহেঃ অতঃপর মারে ও মরে। তওরাত, ইঞ্জিল ও কোরআনে তিনি এ সত্য প্রতিশ্রুতিতে অবিচল। আর আল্লাহর চেয়ে প্রতিশ্রুতি রক্ষায় কে অধিক? সুতরাং তোমরা আনন্দিত হও সে লেন-দেনের উপর, যা তোমরা করছ তাঁর সাথে। আর এ হল মহান সাফল্য। ( সূরা তাওবা: 111)

অর্থাৎ তারা মারে ও তারপর শত্রুদের ধ্বংস করে মরে । সুতরাং এমন পরিস্থিতে নিজের জীবণ বিলিয়ে দেওয়া বরং অনেক সওয়াবের কাজ ।

# ইবনে আবি সাইবা বর্নণা করেন ,মুয়াজ ইবনে আফরা রাসূলুল্লাহগকে জিজ্ঞেস করেন , ” বান্দার কোন কাজ আল্লাহকে হাসায় ? ” তিনি উত্তর দিলেন , ” কোন বর্ম ছাড়াই শত্রু দের ভিতর ঢুকে যাওয়া .” মুয়াজ (রা) এর পর তার বর্ম রেখে শত্রুদের ভিতর ঢুকে পরে লড়াই করতে থাকেন যতক্ষণ না তিনি নিহত হন । (মুসান্নাফ ৫/৩৩৮)

এখানে দেখা যায় জিহাদের ময়দানে দলের জন্য নিজেকে বিলিয়ে দেওয়া প্রশংসনীয় । এবং যুদ্ধ জয়ের জন্য এই আত্মোৎসর্গমূলক আক্রমণ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ।

তবে আলেমদের ব্যাখ্যা ও সিদ্ধান্তে মতভেদ আছে। তবে অনন্যোপায় না হলে ও বাঁচবার সুযোগ থাকলে নিজেকে বাঁচিয়ে জিহাদ করাই উচিত। কারণ বেচে থাকলে আপনি জীবণে মোট আরো অনেক ক্ষতি সাধন করতে পারবেন শত্রুদের ।

• তোমরা নিজেদের ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিওনা। (সূরা বাকারা ১৯৫)

অর্থাৎ , চরম পরিস্থিতিতে শত্রুর উপর আত্মোৎসর্গমূলক হামলা বা “Self sacrificial operations” জায়েজ ।

আশা করি উত্তরটি পেয়েছেন ।

বিশেষ দ্রষ্টব্য :
>> কোন কারণ ছাড়া কাফিরদের শহরে গিয়ে কোন রূপ হামলা যাতে সাধারণ মানুষ মারা যায় তা কোন ভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় । কারণ-

• যে কেউ প্রাণের বিনিময়ে প্রাণ অথবা পৃথিবীতে অনর্থ সৃষ্টি করা ছাড়া কাউকে হত্যা করে সে যেন সব মানুষকেই হত্যা করে। ( সূরা মায়িদা ৩২ )

STA-8.22

‘আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক’  প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে আপনি Facebook, Twitter, ব্লগ,What’sapp , আপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন, মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। “কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা” [সহীহ্ মুসলিম: ২৬৭৪] Dawah in Media us A phenomenal and reaching to hundreds of millions via internet is an index of growing popularity of Islam let’s Reach out to more people and earn sawaab e jaariya . আরো বিস্তারিতভাবে জানতে লিঙ্কে কিল্ক করুন

Print Friendly, PDF & Email

২ thoughts on “জিহাদে, suicide bombing, কি জায়েজ?

  1. Fantastic goods from you, man. I have understand your stuff previous to and you’re just too excellent. I actually like what you have acquired here, certainly like what you’re saying and the way in which you say it. You make it entertaining and you still take care of to keep it wise. I can’t wait to read far more from you. This is actually a wonderful web site.

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Skip to toolbar