নামাজের সবচেয়ে বড় ও সাধারণ ভুল!

Spread the love

নামাজের দুইটি দিক। একটা হলো খুশু, অপরটি খুজু। অন্তরের বিনম্রতা এবং আল্লাহর স্মরণের অপর নাম খুশু। আর খুজু হলো নামাজের বাহ্যিক সব কর্ম সঠিকভাবে সম্পাদন করা। খুশু বা মনোযোগ নামাজের অতি গুরুত্বপূর্ণ দিক, এতে সন্দেহ নেই। কিন্তু নামাজের ফরজ বা ওয়াজিবের তালিকায় এটি নেই। পক্ষান্তরে খুজু বা ধীরস্থিরতার সঙ্গে প্রতিটি রুকন সম্পাদন করা নামাজের অপরিহার্য বিষয়। বেশিরভাগ মুসুল্লিকে নামাজের মনোযোগ নিয়ে বেশি চিন্তিত দেখা যায়। অথচ বাহ্যিক আমলগুলো যথাযথভাবে ধীরস্থিরতার সঙ্গে আদায়ের গুরুত্ব সম্পর্কে ধারণা নেই বললেই চলে।

 

সালাতের সবচেয়ে বড় এবং কমন ত্রুটি হলো ‘তমানিনাহ’ বা ‘খুজু’ না থাকা। ‘তমানিনাহ’ বা ‘খুজু’ হলো প্রতিটি রুকন, উঠাবসা এবং তাসবিহ-তেলাওয়াত ও

দোয়ায় পরিপূর্ণ ধীরস্থিরতা অবলম্বন করা। অন্যভাবে বলা যায়, ভাবগাম্ভীর্যতার সঙ্গে যথানিয়মে প্রতিটি কাজ করা; তাড়াহুড়ো না করা। এটি সালাতের বিশুদ্ধতার জন্য আবশ্যক।

সালাতে ভুলে বা যে কোনো কারণে অন্যমনষ্ক হয়ে যাওয়া দোষের নয়, দোষের হলো সে অবস্থায় স্থির থাকা। রাসুলুল্লাহ (সা.) এর সালাতেও শিশুর কান্না কিংবা অন্য কোনো দিকে মনোযোগ গিয়েছিল। কিন্তু একটিবারের জন্যও তার সালাতের রুকন বা রুকু-সিজদা কিংবা তেলাওয়াত ইত্যাদিতে তাড়াহুড়োর ইতিহাস নেই। যুদ্ধাবস্থায় পালা করে এক রাকাত এক রাকাত করে জামাতে সালাত আদায়ের নির্দেশ করা হয়েছে। তবুও তাড়াহুড়ো করে সালাতের অনুমতি দেয়া হয়নি।

বোখারির বিখ্যাত এক হাদিসে তিনি দ্রুততার সঙ্গে সালাত আদায় করা এক ব্যক্তিতে বলেছিলেন, ‘তুমি সালাতই আদায় করনি! সুতরাং আবার সালাত আদায় করো।’ একই কারণে তিনি তাকে তিনবার পুনরায় সালাত পড়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন! লোকটির সমস্যা ছিল সালাতে ‘তমানিনাহ’ বা খুজু’ ছিল না, যা সালাতের অপরিহার্য বিষয়।

হুজাইফা (রা.) এক ব্যক্তিকে ‘তমানিনাহ’ বা ‘খুজু’বিহীন সালাত আদায় করতে দেখে প্রশ্ন করলেন, তুমি কতদিন এভাবে সালাত আদায় করছ? লোকটি বলল, ৪০ বছর ধরে। তিনি তখন বললেন, যদি তুমি এ সালাতে অটল থেকে মারা যাও তবে মু

হাম্মদ (সা.) এর ধর্মের ওপর তোমার মৃত্যু হলো না! (সুনানে নাসাঈ)।

খোলাসা কথা হলো, সালাতে খুশু বা মনোযোগ না থাকলে সালাতের সওয়াবে ঘাটতি হয়; কিন্তু বাতিল হয়ে যায় না। পক্ষান্তরে খুজু বা প্রতিটি রুকন যথাভাবে আদায় না করলে সালাতই হবে না! সুতরাং আমরা খুশু বা মনোযোগ নিয়ে যতটা চিন্তিত থাকি, ‘খুজু বা তমানিনাহ’র প্রতি তার চেয়ে বেশি যতœশীল হওয়া উচিত। কারণ মন সব সময় নিজের নিয়ন্ত্রণে থাকে না। অথ

চ শরীর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে থাকে। আপনি নিজের সাধ্যের কাজটুকু করুন। অপরটি আল্লাহ সহজ করে দেবেন।

সৌভাগ্যবান সে, যে সময় থাকতে নিজের সংশোধন করে নিতে পারল। একটা সময় হয়তো আসবে, তখন ইচ্ছা থাকলেও আর আল্লাহকে মনভরে যথানিয়মে রুকু-সিজদা করতে পারব না। আল্লাহ আমাদের শুদ্ধরূপে সালাত আদায়ের তৌফিক দান করুন।

এখানে একটি নামায বিষয়ক বই দিয়েদেয়া হয়েছে…! আপনারা বইটি ডাউনলোড করে নিতে পারেন নিচে থেকে…

 

Print Friendly, PDF & Email

৩ thoughts on “নামাজের সবচেয়ে বড় ও সাধারণ ভুল!

  1. Thank you for sharing superb informations. Your site is very cool. I’m impressed by the details that you’ve on this website. It reveals how nicely you understand this subject. Bookmarked this website page, will come back for extra articles. You, my friend, ROCK! I found simply the information I already searched all over the place and just could not come across. What an ideal site.

Leave a Reply

Your email address will not be published.