রাসুল (সাঃ) ঘুমানোর পূর্বে যে আমলগুলো করতেন জেনে নিন

Spread the love

রাসুল (সাঃ) ঘুমানোর পূর্বে যে আমলগুলো করতেন জেনে নিন

১- দুই হাতের তালু একত্রে মিলিয়ে সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক ও সূরা নাস পড়ে তাতে ফুঁ দিবে : তারপর দুই হাতের তালু দ্বারা দেহের যতোটা অংশ সম্ভব মাসেহ করবে। মাসেহ আরম্ভ করবে তার মাথা, মুখমণ্ডল ও দেহের সামনের দিক থেকে। (এভাবে ৩ বার করবে।) (বুখারি-৫০১৭)

২- রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন : যে ব্যক্তি শোয়ার সময় আয়াতুল কুরসী পড়বে শয়তান সারা রাত তার নিকটে যাবে না।(বুখারি-২৩১১)

৩- রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন : যে ব্যক্তি রাতে সুরা বাকারার শেষ ২ আয়াত (আ-মানার রাসূলু–) তেলাওয়াত করবে এটা তার জন্য যথেষ্ট হবে ”। (বুখারি- ৪০০৮

৪- নবী (সাঃ) বলেছেন, রাতে (কুল ইয়া আইয়্যু হাল কা-ফিরুন) (অর্থাৎ সূরা কা-ফিরুন) পাঠ করা শির্ক থেকে মুক্তি পেতে উপকারী। (সহীহ তারগীব-৬০২)

৫- একদা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) তার সাহাবাদের বললেন, “তোমাদের কেউ কি এক রাতে এক তৃতীয়াংশ কুরআন পড়তে অসমর্থ হবে?” এতে সকলকে বিষয়টি ভারী মনে হল। বলল, একাজ আমাদের মধ্যে কে পারবে, হে আল্লাহ্র রাসূল?! তিনি বললেন, সূরা ইখলাস হল এক তৃতীয়াংশ কুরআন।(বুখারী- ৫০১৫)

৬- “রাসূলুল্লাহ (সাঃ) যখন ঘুমানোর ইচ্ছা করতেন তখন তাঁর ডান হাত তাঁর গালের নীচে রাখতেন, তারপর এ দো‘আটি বলতেন।”
« اللَّهُمَّ بِاسْمِكَ أَمُوتُ وَأَحْيَا».
(আল্লাহুম্মা বিস্‌মিকা আমূতু ওয়া আহ্ইয়া)।
“হে আল্লাহ ! আপনার নাম নিয়েই আমি মরছি (ঘুমাচ্ছি) এবং আপনার নাম নিয়েই জীবিত (জাগ্রত) হবো।(বুখারি- ৬৩২৪)

৭- রাসূলুল্লাহ (সাঃ) আলী এবং ফতেমা (রাঃ)- কে বলেন : আমি কি তোমাদেরকে এমন কিছু বলে দিবো না যা তোমাদের জন্য খাদেম অপেক্ষাও উত্তম হবে? যখন তোমরা তোমাদের বিছানায় যাবে, তখন তোমরা ৩৩ বার সুবহানাল্লাহ, ৩৩ বার আলহামদুলিল্লাহ, এবং ৩৪ বার আল্লা-হু আকবার বলবে, তা খাদেম অপেক্ষাও তোমাদের জন্য উত্তম হবে’’। (বুখারী- ৩৭০৫)

                                                              
৮- রাসূল (সাঃ) বলেন : “যে ব্যাক্তি প্রত্যেক রাতে তাবারকাল্লাযী বিইয়াদিহিল মুলক (সুরাহ মূলক) পাঠ করবে এর মাধ্যমে মহিয়ান আল্লাহ্ তাকে কবরের আযাব থেকে রক্ষা করবেন (নাসাই- শাইখ আলবানি (রঃ) হাদিসটাকে হাসান সহিহ বলেছেন এছাড়াও তিরমিজি-২৮৯০)

৯- বারা ইবনু আযেব (রাঃ) বলেন, রাসূলুল্লাহ্ (সাঃ) যখন শয্যায় যেতেন তখন ডান পার্শের উপর শয়ন করতেন। অতঃপর বলতেন-
«اللَّهُمَّ أَسْلَمْتُ نَفْسِي إِلَيْكَ، وَفَوَّضْتُ أَمْرِي إِلَيْكَ، وَوَجَّهْتُ وَجْهِي إِلَيْكَ، وَأَلْجَأْتُ ظَهْرِي إِلَيْكَ، رَغْبَةً وَرَهْبَةً إِلَيْكَ، لاَ مَلْجَأَ وَلاَ مَنْجَا مِنْكَ إِلاَّ إِلَيْكَ، آمَنْتُ بِكِتَابِكَ الَّذِي أَنْزَلْتَ، وَبِنَبِيِّكَ الَّذِي أَرْسَلْتَ».
(আল্লা-হুম্মা আস্‌লামতু নাফ্‌সী ইলাইক, ওয়া ফাউওয়াদ্বতু আমরী ইলাইক, ওয়া ওয়াজ্জাহ্‌তু ওয়াজহিয়া ইলাইক, ওয়াআলজা’তু যাহ্‌রী ইলাইক, রাগবাতান ওয়া রাহবাতান ইলাইক, লা মালজা’আ ওয়ালা মান্‌জা মিনকা ইল্লা ইলাইক, আ-মানতু বিকিতা-বিকাল্লাযী আনযালতা ওয়াবিনাবিয়্যিকাল্লাযী আরসালতা)।
“হে আল্লাহ! আমি নিজেকে আপনার কাছে সঁপে দিলাম। আমার যাবতীয় বিষয় আপনার কাছেই সোপর্দ করলাম, আমার চেহারা আপনার দিকেই ফিরালাম, আর আমার পৃষ্ঠদেশকে আপনার দিকেই ন্যস্ত করলাম; আপনার প্রতি অনুরাগী হয়ে এবং আপনার ভয়ে ভীত হয়ে। একমাত্র আপনার নিকট ছাড়া আপনার (পাকড়াও) থেকে বাঁচার কোনো আশ্রয়স্থল নেই এবং কোনো মুক্তির উপায় নেই। আমি ঈমান এনেছি আপনার নাযিলকৃত কিতাবের উপর এবং আপনার প্রেরিত নবীর উপর।”

রাসূলুল্লাহ্ (সাঃ) বলেন, কেউ যদি এ দোয়া পাঠ করে তারপর রাতে মৃত্যুবরণ করে, সে ইসলামের উপর মৃত্যুবরণ করবে।(বুখারী- ৬৩১৩)

আশা করি আরটিকেল লেখাটি আপনাদের অনেক ভালো লেগেছে। এরকম আরটিকেল লেখা নিয়মিত পেতে আমাদের ওয়েবসাইটে দৃষ্টি রাখুন নিয়মিত। ফেসবুকে আমিঃ Tajmaul Sk

Print Friendly, PDF & Email

লেখক পরিচিতিঃ

Tajmaul Skআসসালামু আলাইকুম ওয়ারহমাতুল্লাহ মানিত্তাবাল হুদা
মহান আল্লাহ পবিত্র কুরআনে ইরশাদ করেন,
------
আর তার চেয়ে কার কথা উত্তম, যে আল্লাহর দিকে দাওয়াত দেয়, সৎকর্ম করে এবং বলে, অবশ্যই আমি মুসলিমদের অন্তর্ভুক্ত’?" [সূরা-হামীম-সাজদাহ-৬৩"]
তাবলীগ অর্থ কি?
তাবলীগ কিসের করতে হবে?
তাবলীগ কিভাবে করতে হবে?
========================
তাবলীগ অর্থ''''''''
"তাবলীগ" অর্থ প্রচার করা, বা বার্তা পৌঁছে দেওয়া।
তাবলীগ অর্থ কোনো দল না, যদিও বর্তমানে অনেক মানুষ মন করে তাবলীগ মানে একটা দল।

তাবলীগ কিসের করতে হবে''''''''''''
তাবলিগ করতে হবে “কুরআন” ও “সুন্নাহর” (সহীহ হাদীস)।

আল্লাহ তাআ'লা বলেছেনঃ
"ইয়া আয়্যুহার-রাসুলু বাল্লিগ মা উনযিলা ইলাইকা মির-রাব্বিকা"
অর্থঃ হে নবী! আপনি আপনার রব্বের পক্ষ থেকে যা নাযিল করা হয়েছে তা প্রচার করুন।
[সূরা- মায়িদাহঃ ৬৭]

রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ "বাল্লিগু আন্নি ওলাও আয়াহ"। [বুখারী-৩৪৬১]
অর্থঃ তোমরা আমার পক্ষ থেকে একটা আয়াত হলেও প্রচার করে দাও।

রাসুলের উপর নাযিল করা হয়েছে – কুরআন ও সুন্নাহ। সুতরাং একজন মুসলিম শুধু কুরআন ও সুন্নাহর তাবলীগ করতে পারে্। পীর-মুরিদীর ব্যবসা, নিজের তরীকা বা ফেরকা, বুজুর্গদের ভুয়া কিচ্ছা কাহিনী, ঈমান-আকীদা বিধ্বংসী কথা বার্তা ও জাল হাদীস, এইসব সে প্রচার করতে পারেনা। সুফীবাদীদের লেখা ভেজাল আমলের কিতাবের তাবলীগ করতে পারেনা।

তাবলীগ কিভাবে করতে হবে'''''''''''''''''''
তাবলীগ করতে হলে নিজে জেনে-শুনেই করতে হবে, অজ্ঞতা নিয়ে দাওয়াত দিতে গেলে তাবলীগ হবে, কিন্তু দ্বীনের তাবলীগ হবেনা। শিরক-বিদআ’তের তাবলীগ হবে।

"(হে নবী আপনি) বলে দিনঃ এটাই আমার পথ। আমি আল্লাহর দিকে জেনে বুঝে দাওয়াত দেই, আমি এবং আমার অনুসারীরা। আল্লাহ পবিত্র। আর আমি মুশরেকদের অন্তর্ভুক্ত নই।"
[সূরা- ইউসুফঃ ১০৮]

এই নিয়ম না মানার কারণে অনেক লোক আছে যারা তাবলীগ করার দাবী করে কিন্তু সে আসলে নিজের মনগড়া কাহিনী, জাল হাদীস, ভুয়া আমল, বেদাতী চিন্তা-ভাবনা ও কাজকর্ম প্রচার করে নিজেদের পরকালের ক্ষতি করছে, অন্যদেরকেও পথভ্রষ্ট করছে।
আল্লাহ তায়ালা আমাদের যেন সঠিক টা বুঝে আমল করা ও প্রচার করার তাওফীক দান করেন, আমীন।। প্রণেতা by :-তাজমাউল সেখ !!

Tajmaul Sk

মহান আল্লাহ পবিত্র কুরআনে ইরশাদ করেন, ------ আর তার চেয়ে কার কথা উত্তম, যে আল্লাহর দিকে দাওয়াত দেয়, সৎকর্ম করে এবং বলে, অবশ্যই আমি মুসলিমদের অন্তর্ভুক্ত’?" [সূরা-হামীম-সাজদাহ-৬৩"] তাবলীগ অর্থ কি? তাবলীগ কিসের করতে হবে? তাবলীগ কিভাবে করতে হবে? ======================== তাবলীগ অর্থ'''''''' "তাবলীগ" অর্থ প্রচার করা, বা বার্তা পৌঁছে দেওয়া। তাবলীগ অর্থ কোনো দল না, যদিও বর্তমানে অনেক মানুষ মন করে তাবলীগ মানে একটা দল। তাবলীগ কিসের করতে হবে'''''''''''' তাবলিগ করতে হবে “কুরআন” ও “সুন্নাহর” (সহীহ হাদীস)। আল্লাহ তাআ'লা বলেছেনঃ "ইয়া আয়্যুহার-রাসুলু বাল্লিগ মা উনযিলা ইলাইকা মির-রাব্বিকা" অর্থঃ হে নবী! আপনি আপনার রব্বের পক্ষ থেকে যা নাযিল করা হয়েছে তা প্রচার করুন। [সূরা- মায়িদাহঃ ৬৭] রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেনঃ "বাল্লিগু আন্নি ওলাও আয়াহ"। [বুখারী-৩৪৬১] অর্থঃ তোমরা আমার পক্ষ থেকে একটা আয়াত হলেও প্রচার করে দাও। রাসুলের উপর নাযিল করা হয়েছে – কুরআন ও সুন্নাহ। সুতরাং একজন মুসলিম শুধু কুরআন ও সুন্নাহর তাবলীগ করতে পারে্। পীর-মুরিদীর ব্যবসা, নিজের তরীকা বা ফেরকা, বুজুর্গদের ভুয়া কিচ্ছা কাহিনী, ঈমান-আকীদা বিধ্বংসী কথা বার্তা ও জাল হাদীস, এইসব সে প্রচার করতে পারেনা। সুফীবাদীদের লেখা ভেজাল আমলের কিতাবের তাবলীগ করতে পারেনা। তাবলীগ কিভাবে করতে হবে''''''''''''''''''' তাবলীগ করতে হলে নিজে জেনে-শুনেই করতে হবে, অজ্ঞতা নিয়ে দাওয়াত দিতে গেলে তাবলীগ হবে, কিন্তু দ্বীনের তাবলীগ হবেনা। শিরক-বিদআ’তের তাবলীগ হবে। "(হে নবী আপনি) বলে দিনঃ এটাই আমার পথ। আমি আল্লাহর দিকে জেনে বুঝে দাওয়াত দেই, আমি এবং আমার অনুসারীরা। আল্লাহ পবিত্র। আর আমি মুশরেকদের অন্তর্ভুক্ত নই।" [সূরা- ইউসুফঃ ১০৮] এই নিয়ম না মানার কারণে অনেক লোক আছে যারা তাবলীগ করার দাবী করে কিন্তু সে আসলে নিজের মনগড়া কাহিনী, জাল হাদীস, ভুয়া আমল, বেদাতী চিন্তা-ভাবনা ও কাজকর্ম প্রচার করে নিজেদের পরকালের ক্ষতি করছে, অন্যদেরকেও পথভ্রষ্ট করছে। আল্লাহ তায়ালা আমাদের যেন সঠিক টা বুঝে আমল করা ও প্রচার করার তাওফীক দান করেন, আমীন।। প্রণেতা by :-তাজমাউল সেখ !!

২ thoughts on “রাসুল (সাঃ) ঘুমানোর পূর্বে যে আমলগুলো করতেন জেনে নিন

  1. I’m impressed, I must say. Really not often do I encounter a blog that’s each educative and entertaining, and let me tell you, you’ve got hit the nail on the head. Your idea is excellent; the issue is something that not enough people are talking intelligently about. I’m very glad that I stumbled across this in my search for one thing relating to this.

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Skip to toolbar